Read শঙ্কু সমগ্র by Satyajit Ray সমীর সরকার Online

শঙ্কু সমগ্র

পরফেসর শঙকু কে? তিনি এখন কোথায়? এটুকু জানা গেছে যে তিনি একজন বৈজঞানিক। কেউ কেউ বলে তিনি নাকি একটা ভীষণ পরীকষা করতে গিয়ে পরাণ হারিয়েছেন। আবার এও শোনা যায় যে তিনি কোনো অজঞাত অঞচলে গা ঢাকা দিয়ে নিজের কাজ করে যাচছেন, সময় হলেই আতমপরকাশ করবেন।পরফেসর শঙকুর পরতিটি ডায়েরিতে কিছু না কিছু আশচরয অভিজঞতার বিবরণ আছে। কাহিনীগুলো সতয কি মিথযা, সমভব কি অসমভব, সে বিচার পাঠকরা করবেন!প্রফেসর শঙ্কু কে? তিনি এখন কোথায়? এটুকু জানা গেছে যে তিনি একজন বৈজ্ঞানিক। কেউ কেউ বলে তিনি নাকি একটা ভীষণ পরীক্ষা করতে গিয়ে প্রাণ হারিয়েছেন। আবার এও শোনা যায় যে তিনি কোনো অজ্ঞাত অঞ্চলে গা ঢাকা দিয়ে নিজের কাজ করে যাচ্ছেন, সময় হলেই আত্মপ্রকাশ করবেন।প্রফেসর শঙ্কুর প্রতিটি ডায়েরিতে কিছু না কিছু আশ্চর্য অভিজ্ঞতার বিবরণ আছে। কাহিনীগুলো সত্য কি মিথ্যা, সম্ভব কি অসম্ভব, সে বিচার পাঠকরা করবেন!...

Title : শঙ্কু সমগ্র
Author :
Rating :
ISBN : 9788177562323
Format Type : Hardcover
Number of Pages : 648 Pages
Status : Available For Download
Last checked : 21 Minutes ago!

শঙ্কু সমগ্র Reviews

  • Dyuti
    2018-12-30 20:28

    Bengali Science Fiction at its best.Created by the literary genius Satyajit Ray, Professor Shonku is primarily an inventor rather than a scientist engaged in a specific field (much like Edison). He is quite a prodigy, having a double honours in Physicss and Chemistry, and being able to fluently converse in 69 languages. Yet the man within is quite like any other middle class erudite Bengali. He lives with his 24 year old cat Newton, and a forgetful man-servant, Prahlad. With his inventions, he visits many science conferences around the world, or goes out for scientific expeditions, where he gets caught up in mysterious dealings and crimes. With the help of his wit and inventions, and sometimes with the help of his friends Somerset, Saunders and Kroll, he helps to establish the truth. Yet the stories never tend to become preachy. On the contrary, the adventures, and the fast pace makes them complete page-turners.Each story is written in the form of a diary entry -- the format was such a novelty in Bengali literature at the time of it's publication, that it made the reader actually consider the possibility whether Shonku was indeed a lving person. Prrimarily targeted for young adults, another great aspect of this series is that you can learn so much about the different cultures of the world, which can be really great for a teen, who seeks information along with the thrill of a good story.It is one of those books which shaped my growing up years and will forever be close to my heart! 5/5 stars!

  • Saiful Sourav
    2019-01-18 23:41

    Dear Professor Shonku, Thank you for your crazy science experiments & adventures. And I want you in heaven (though I don't know if there's any).প্রফেসর শঙ্কুর পোষা বেড়াল নিউটনটাকে মনে পড়লে বিজ্ঞানী নিউটনের একটা গল্প মনে পড়ল। ব্যক্তিগত গবেষণার ঘরে কাজ করার সময় বিজ্ঞানী নিউটন কাউকে ঢুকতে দিতেন না। পোষা বেড়াল দরজায় দাঁড়িয়ে মিঁয়াও মিঁয়াও করতে থাকলে দেখলেন তাতে কাজে আরো ব্যাঘাত বেশি হচ্ছে। তাই বেড়ালটার ঘরে ঢোকার জন্য দেয়ালের এক কোনায় একটা ফুটো করলেন। তাতে বিরক্তি উৎপাদন বন্ধ হলো। কিছুদিন পর বেড়ালটা একগাদা বাচ্চা দিলো। বিজ্ঞানী নিউটন ভাবলেন এত্তোগুলা বাচ্চা যেহেতু বেড়ালটার সাথে ঘরে ঢুকবে তাই বাচ্চাদের জন্যও দেয়ালে ছোট ছোট ফুটো করলেন। কিন্তু সবগুলো বেড়াল একটা ফুটো দিয়েই ঘরে যাতায়ত করতে থাকলো।প্রফেসর শঙ্কু এমনসব জিনিস বানাতো আর এমনসব অভিযানে ঝাঁপিয়ে পড়ত, সে বয়সে যে শিহরণ কাজ করত, তাতেই মনে করি শিশুতোষ ফিকশনের জন্য সত্যজিৎ রায় একদম- বৈশ্বিক বিধাতা!

  • Azmain Tur
    2019-01-17 21:44

    মাথার সামনের দিকে টাক, পিছনে কয়েকগোছা সাদা চুল। গোলফ্রেমের মোটা কাঁচের চশমা চোখে, থুতনিতে সাদা দাঁড়ি। তিনি মানুষটা দেখতে হয়ত ছোটোখাটো আত্মভোলা, কিন্তু মাথা তার একেবারে ‘ব্রহ্মাস্ত্র’! টমাস আলভা এডিসনের পরে ইতিহাসের সবচে বড় উদ্ভাবক তিনি। অদ্ভুত অদ্ভুত সব আবিষ্কারের মালিক, যেগুলোর নাম আরও অদ্ভুত- অ্যানাইহিলিন, রিমেমব্রেন, মিরাকিউরল, লিঙ্গুয়াগ্রাফ আরও কত কি! অ্যানাইহিলিন যেকোনো জিনিসকে এক মুহূর্তে নিশ্চিহ্ন করে দিতে পারে; দুনিয়ার এমন কোন অসুখ নেই যা মিরাকিউরল-এ সারে না। লিঙ্গুয়াগ্রাফ যন্ত্র যেকোনো ভাষাকে বোধগম্য করে তোলে, আর রিমেমব্রেন ব্যবহার করা হয় স্মৃতিউদ্ধারের কাজে! এই দুনিয়াখ্যাত আবিষ্কারক কিন্তু একজন বাঙালী, থাকেন বিহারের গিরিডিতে। কলকাতার স্কটিশ চার্চ কলেজের বিজ্ঞানের অধ্যাপক- প্রফেসর ত্রিলোকেশ্বর শঙ্কু!সত্যজিৎ রায়ের এক অনন্য সৃষ্টি প্রফেসর শঙ্কু। ১৯৬১ সালে সত্যজিৎ প্রথম শঙ্কু-কাহিনি লেখা শুরু করেন, তারপর আর থামেননি; টানা লিখে গেছেন বিরানব্বই পর্যন্ত, মৃত্যু এসেই তাকে থামায়। শঙ্কুকে নিয়ে মোট গল্প চল্লিশটা, যার শেষ দুটা অসম্পূর্ণ। গল্পগুলো সবই লেখা হয়েছে ডায়েরির আকারে। সবগুলো গল্প একবারে পাওয়া যায় ‘শঙ্কুসমগ্র’ বইটাতে। ঢাউস আকৃতির এক বই, ৬৪৪ পৃষ্ঠার। কিন্তু একবার শঙ্কুর অভিযানে মজে গেলে বই শেষ করেও আফসোস করা লাগে- বড় তাড়াতাড়ি শেষ হয়ে গেলো!প্রফেসর শঙ্কুর গল্পগুলোকে কোন নির্দিষ্ট জাতের বলা চলে না। এদের বলা যেতে পারে সায়েন্স ফিকশন, আবার বলা যাবে এডভেঞ্চারের গল্পও; ভ্রমণঅভিযানের আদলে রহস্য গল্প বললেও কি ভুল হবে! না, কোন প্রজাতিভুক্ত না করাই ভালো, এগুলো শুধুই শঙ্কু-কাহিনি হয়েই থাকুক। সারাজীবন বিজ্ঞানী বলতেই চোখে ভেসে ওঠে ঘরকুনো এক পাগলাটে বুড়োর ছবি, যার স্বর্গ হল তার ল্যাবরেটরি, আর যার ভ্রমণ মানে বিকালে একটু নদীর তীরে হাঁটাহাঁটি। শঙ্কু পড়তে গিয়ে ভীষণভাবে ভেঙে যাবে এ ধারণা। সারাবছর শঙ্কু বিলেত-আমেরিকা করে বেড়ান; কখনো তিব্বতে যান, কখনো যান মিশরের মরুভূমিতে। মাঝে মাঝে তো মহাসাগরের তলে আর মহাকাশেও ঘুরে আসেন। অধিকাংশ অভিযানেই তার সাথে থাকেন তার প্রিয় দুই বন্ধু- ইংরেজ বিজ্ঞানী জেরেমি সণ্ডারস আর জার্মান উদ্ভাবক ক্রোল। আরও কিছু চরিত্র ঘুরে ফিরে সত্যজিৎ বিভিন্ন গল্পে নিয়ে এসেছেন- গিরিডির নকুলবাবু, যিনি খুব সহজেই যে কারো অতীত বলে দিতে পারেন প্রথম দেখাতেই, যিনি কল্পনার বিভিন্ন বস্তুর অবয়ব তৈরি করে ফেলেন বাস্তবে। আরও আছেন অবিনাশ মজুমদার, শঙ্কুর প্রতিবেশি, যিনি তার বিভিন্ন উদ্ভট আর বোকামির কাজ করে প্রফেসরকে ব্যতিব্যস্ত করে রাখেন। প্রায় প্রতিটি গল্পেই এসেছে চাকর প্রহ্লাদ আর শঙ্কুর আদরের বিড়াল নিউটন।মজার কথা হল ‘শঙ্কুসমগ্র’ বইয়ের প্রথম গল্প ‘ব্যোমযাত্রীর ডায়রি’ শঙ্কুর ডায়েরিগুলোর শেষ কিস্তি। এখানেই তিনি বলছেন তার মঙ্গলগ্রহ অভিযানের পরিকল্পনার কথা, তার বানানো যন্ত্রমানব বিধুশেখর এর কথা, যাকে তিনি আবার বাংলাও শিখিয়েছেন। অতঃপর ভারতবর্ষের খ্যাতিমান বিজ্ঞানী প্রফেসর ত্রিলোকেশ্বর শঙ্কু উধাও হলেন, চলে গেলেন লাল মঙ্গলে। সেখান থেকে এক উল্কার সাহায্যে তিনি তার ডায়েরি পাঠিয়ে দেন পৃথিবীতে, একেবারে সুন্দরবনে এসে সে উল্কাপতন হল। সেই ডায়েরিই ঘটনাক্রমে লেখকের হাতে এসে পড়লে তিনি তা নিয়ম করে ছাপতে থাকেন ‘সন্দেশ’-এ!শঙ্কু কাহিনি গুলোতে একই সাথে আসে ভূগোলের সত্যি, বিজ্ঞানের তথ্য আর প্রকৃতির রহস্য। অধিকাংশ বিজ্ঞানীর মত শঙ্কু মোটেই বস্তুবাদী নন। আধ্যাত্মিক বিষয়আশয়ে তার আছে প্রচুর জ্ঞান আর আগ্রহ। এর প্রমাণ মেলে ‘নেফ্রুদেত এর সমাধি’, ‘শঙ্কুর পরলোকচর্চা’, ‘প্রফেসর শঙ্কু ও ভূত’-এর মতো গল্পগুলোতে।‘শঙ্কুসমগ্র’ বইয়ের অধিকাংশ গল্পই খুব মজার, প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত টানটান। তবে বিশেষভাবে কয়েকটার কথা বলতেই হয়- ‘একশৃঙ্গ আভিযান’-এ শঙ্কু তার দলবল নিয়ে চলে যান তিব্বতে, ইউনিকর্নের খোঁজে; ‘আশ্চর্য প্রাণী’ গল্পে এসেছে ভবিষ্যৎ মানুষের কথা। ‘নকুড়বাবু ও এল ডোরাডো’-তে নকুড়বাবুকে নিয়ে শঙ্কু বের হন কিংবদন্তীর স্বর্ণশহর এল ডোরাডো অভিযানে। ‘মরুরহস্য’-এর পটভূমি মিশর, প্রফেসর ইজিপ্টের মরুভূমিতে খুঁজে বেড়ান এক হারিয়ে যাওয়া বিজ্ঞানী-কে। বইয়ের সবচে বড় গল্প ‘স্বর্ণপর্ণী’, আমার সবচে প্রিয় গল্পও এটাই। এটাকে বলা চলে প্রফেসর শঙ্কুর আত্মজীবনী, তার শৈশব থেকে যৌবনের গল্প। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের অনেক টুকরো ছবি আছে এ গল্পে।সবচে কষ্ট হয় বইয়ের শেষ দুইটা গল্প-‘ইনটেলেকট্রন’ আর ‘ডেক্সেল আইল্যান্ডের ঘটনা’-এ দুটো অসম্পূর্ণ গল্প পড়তে গিয়ে। মনে হয়-ইশ!যদি এ দুটোও শেষ করে যেতে পারতেন, আরও কিছু চমৎকার সময় কাটত!বইটা শেষ করে একটা খটকা লেগেছে- শঙ্কুর জন্মদিন নিয়ে। ‘স্বর্ণপর্ণী’ গল্পে ১৬ জুন এর ডায়েরিতে শঙ্কু বলছেন- “আজ আমার জন্মদিন”; কিন্তু ‘ডেক্সেল আইল্যান্ডের ঘটনা’-য় আবার ১৬ অক্টোবরে লিখছেন আজ আমার পঁচাত্তর পূর্ণ হল। অবশ্য তার মত মানুষের ক্ষেত্রে বছরে দুইটা জন্মদিন পালন কোন ব্যাপারই না!শঙ্কু পড়তে পড়তে বারবার শ্রদ্ধা জাগে সত্যজিৎ রায়ের সৃজনশীলতার প্রতি, একটা মানুষের মাথায় এত কিছু আঁটত কী করে! ‘শঙ্কুসমগ্র’ প্রধানত কিশোরসাহিত্যের তকমাধারী হলেও, সব বয়সের পাঠকদেরই ভালো লাগার মত একটা বই। যারা কিশোরবেলায় এ বই পড়েছেন, তারা বড় হয়ে গেলেও অবসরে নিশ্চয়ই মাঝেমধ্যে সেই পুরনো শঙ্কুর অভিযানগুলোতে সঙ্গী হতে চাইবেন! এ বই তাই বারবার পড়ার...

  • Sabbir Ahmed
    2019-01-13 18:36

    ফেলুদার পর সত্যজিৎ রায়ের আরেক অসামান্য সৃষ্টি বাংলার বিখ্যাত বিজ্ঞানী ও আবিষ্কারক প্রফেসর ত্রিলোকেশ্বর শঙ্কু।শুরুর দিকের গল্পগুলোতে শঙ্কুকে পাগলাটে, ক্ষাপাটে বিজ্ঞানী হিসেবে পরিচিত করা হলেও মাঝামাঝি ও শেষের দিকের গল্পগুলোতে তাকে একজন বিচক্ষণ মানুষ হিসেবে দেখানো হয়েছে। গল্পগুলোতে গুটি কয়েক অসঙ্গতিও ধরা পড়েছে এবং সত্যজিৎ রায় শঙ্কু অভিযান শেষ করে যেতে পারেন নি। শেষের দিকের দুটি গল্প অসম্পূর্ণ। গল্পগুলোতে অনেক আজগুবি ও অসম্ভব আবিষ্কারের কথা লেখা হয়েছে যা আদৌও সম্ভব নয়। এতে করে কিন্তু অ্যাডভেঞ্চারের মজা বিনষ্ট হয় নি। ফলে কিশোর শ্রেণীর পাঠকদের জন্য বইটি সুপারিশ যোগ্য। সর্বোপরি, আমার ধারণা, হয়ত সত্যজিৎ রায় শঙ্কুর মাধ্যমে বাঙ্গালী বিজ্ঞানীদের অভার পূরণের প্রয়াস নিয়েছিলেন। শুধু তাই নয়, একজন সত্যিকারের বিজ্ঞানীর মনমানসিকতা কেমন হওয়া উচিত তাও তিনি ব্যক্ত করেছেন শঙ্কুর মাধ্যমে। তাইতো দেখা যায় খ্যাতি অর্জনের মোহ, ধন সম্পদের লালসা তার কাছে হার মেনেছে। ব্যক্তিস্বার্থকে শঙ্কু অনেক জায়গায় জলাঞ্জলী দিয়েছে বৃহত্তর স্বার্থের খাতিরে। বিশ্বের সকল দেশের সকল ক্ষেত্রের বিজ্ঞানীদের প্রতি তার ছিল অগাধ ভালবাসা। সত্যিকারের বিজ্ঞানী হতে হলে শঙ্কুর মতনই হওয়া উচিত। কে জানে হয়ত শঙ্কুর গল্প পড়ে অনুপ্রাণিত হয়ে একদিন সত্যি সত্যি এদেশে জন্ম নিবে বিখ্যাত বিজ্ঞানী যার দ্বারা আলোকিত হবে বাঙ্গালী জাতি বিশ্ব দরবারে।

  • Emtiaj
    2019-01-19 20:56

    বড় হয়ে গেছি। আজকাল সায়েন্স ফিকশান পড়লেও পিউর সায়েন্সের চিন্তা মাথায় চলে আসে; খুবই খারাপ ব্যপার।শঙ্কু একজন বিজ্ঞানী নন, অতিমানবীয় টাইপের অতিবিজ্ঞানী।আমি ডুংলুং-ডোর এ যেতে চাই। সারাক্ষণ মায়ার জগতে থাকতে চাই।আরেকটা ব্যপার দেখলাম, হয়তো আমার বইটা পাইরেটেড বলেই কীনা (ভুলই হয়তো)"স্বর্ণপর্ণী" তে আছে, ১৬ জুনআজ আমার জন্মদিনআর "ড্রেক্সেল আইল্যান্ডের ঘটনা" তে আছে১৬ অক্টোবরআজ আমার পঁচাত্তর বছর পূর্ণ হল।অবশ্য এটাও বলে রাখা ভালো, শেষের গল্পটা উনি শেষ করে যেতে পারেননি।

  • Riju Ganguly
    2019-01-09 21:37

    These are classics that had helped shape my childhood, firing the imagination as well as providing a superb escape from the everyday relaities of grumpy school-teachers, problematic domestic life, neighbourhood bullies etc. The adventures are superb examples of Ray's unique brand of story-telling, combining mystery, science (improbable, but tremendoulsy attractive to young minds), horror, and suspense. But the publishers could have easily annotated this collection to enable us to appreciate the creativity of the last renaissance man of Bengal to a greater extent. Otherwise, highly recommended.

  • Sukla
    2019-01-19 18:38

    The best bengali science fiction book. I enjoyed it throughout. Character Shanku (the great physicist) is the auspicious creation of Satyajit Ray. The genius thought and discovery of Prof. Shanku is worth readable.

  • Taufiq Rahman
    2019-01-20 20:31

    Read when I was just entering my teens. I would give it a 5 star any day because Professor Shonku was the one who showed me dreams in my childhood. Anyways I can still remember that I bought this book from Nilekhet for 120tk only.

  • Rezaur
    2019-01-13 22:39

    Fantabulous ....

  • Maruf Morshed
    2019-01-08 23:36

    এক তোরঙ্গ শঙ্কু-সত্যজিত রায় বুক মিভিউজাফর ইকবাল-সায়েন্স ফিকশন লিখেন, আইজ্যাক আসিমভ সায়েন্স ফিকশন লিখেন। সেই অর্থে সত্যজিত রায়ের শঙ্কুকে সাহিত্যিক সায়েন্স ফিকশন বলা যায়। একবারেও মনে হয়নি-বিজ্ঞানের কোন জটিল বিষয় পড়ছি, বা কেমিস্ট্রির খটর মটর কিছু পড়ছি। কম্পুর এর ব্যাপারটাতেই আসা যাক। কম্পু ভবিষ্যতে মানুষকে তার দাসে পরিনত করবে, যন্ত্রের যুগ আসবে-এর মোদ্দা কথা নানা লেখক নানা ভাবে তুলে ধরেন, কেউ টারমিনেটর এর মত সবাইকে যুদ্ধে নামিয়ে দেন, কেউ আবার কষ্ট দেখান, মানুষের কর্মহীনতা দেখান। আর সত্যজিৎ রায় তার সাহিত্য মনে কম্পুকে আনলেন খেলার মাঠে, যে কিশোর বয়সে খেলতে যাবে, আর মানবিক এর চরম পরিচয় মিলল যখন কম্পু বলে উঠল তার ধ্বংসের মাধ্যমে –যে মৃত্যুর পর কি হবে তা আমি জানি। অসাধারন, আহা আহা, ;এত মাধূর্য যে মনের জিহবায় জল আসতে বাধ্য। এই শঙ্কু অনেক শিশু কিশোর কে যে বিজ্ঞানমনষ্ক করেছে, ল্যাবে যেতে উদ্ধুদ্ধ করেছে-তা আমি নিশ্চিত। এই বই ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণীর ছাত্রছাত্রীদের অবশ্য পাঠ্য। এমনকি একটু আধটু টেক্সটবুকে দিলেও মন্দ হয় না।

  • Nuha
    2019-01-16 00:43

    প্রফেসর শঙ্কু, একজন পাগলাটে বিজ্ঞানীর নাম। সত্যজিত রায়ের আরেকটি চমৎকার সৃষ্টি। পুরো নাম ত্রিলোকেশ্বর শঙ্কু, তিনি আবিষ্কার করেন অদ্ভুত অদ্ভুত সব জিনিসপত্র। ঘুরে বেড়ান অদ্ভুত সব জায়গায়। তিনি যেসমস্ত অভিযানে যান, সেসকল অভিযানের বর্ণনায় থাকে টানটান উত্তেজনা। তিনি এমন জায়গাতেও গেছেন যেসব জায়গা পৃথিবীতে নেই, কিন্তু লেখক এমন সাবলীলভঙ্গিতে জায়গাগুলোর বর্ননা দিয়েছেন যেন জায়গাগুলো আশেপাশেই আছে। লেখক ১৯৬১ সালে সৃষ্টি করেছিলেন চমৎকার এই চরিত্রটি, অথচ এতো বছর পরেও বইটি ঠিক ততোটাই আধুনিক। ৯টি ভাষা জানা ও হায়ারোগ্লিফিক পড়তে পারা লোকটি মূলত পদার্থবিজ্ঞানী হলেও বিজ্ঞানের সকল শাখায় তাঁর অবাধ বিচরণ। প্রোফেসর শঙ্কুর জবানিতে লেখা ডায়রি আকারে লেখা গল্প গুলো খুব বেশি প্রাঞ্জল। অসাধারণ বইটি প্রত্যেক বইপড়ুয়ারই সংগ্রহে থাকার মত! হ্যাপী রিডিং!

  • Mushtarin
    2019-01-13 23:47

    গোয়েন্দাগিরিতে যেমন ফেলুদা, বৈজ্ঞানিক ও আবিষ্কারক হিসেবে তেমন প্রফেসর ত্রিলোকেশ্বর শঙ্কুর দ্বারা রায়সাহেব পশ্চিমের জয়জয়কারের স্থলে বাঙালি চরিত্রের অসাধারণত্ব দেখিয়েছেন। চরিত্রের প্রয়োজনেই কিনা, ফেলুদা বা শঙ্কু দুজনের মধ্যেই কিছুটা হামবড়া ভাব প্রকাশ পায় বৈকি। গল্পে প্রফেসর শঙ্কু বিজ্ঞানী হলেও তার অভিযানগুলির যুক্তিসম্মত এক্সপ্লানেশন দেয়া কঠিন। বিজ্ঞানের যুক্তিকে পাশে রেখে কোলরিজের ভাষায় "উইলিং সাস্পেনশন অফ ডিসবিলিফ" নিয়ে শঙ্কুসাহেবের অভিযান ও কীর্তি পড়লেই তবে পাঠকের ভালো লাগবে। বিশেষ করে বড়বেলায় এ বই পড়তে বসলে সেকথা মাথায় রাখা আবশ্যক। পুনশ্চঃ বিভিন্ন পশ্চিমা বিজ্ঞানীগণের ভিড়ে গিরিডির এক বাঙালি বিজ্ঞানীর বিশ্বজোড়া খ্যাতি রায়সাহেবের কলোনিয়াল ডিসকোর্সকে প্রশ্নবিদ্ধ করা ও পোস্টকলোনিয়াল ডিসকোর্স মেকিং নয় কি? বড়বেলায় পড়ে ভালো লেগেছে। ৪ দিলাম।

  • TIYASH PAUL
    2019-01-02 00:33

    Long before I got acquainted with the works of Issac Asimov and Arthur C. Clarke, I had finished reading this book. I believe the stories contained in here have inspired many writers across the globe, for there are stark resemblances in the plots and themes of numerous other stories that were written much later. Each one is a masterpiece on its own!

  • Tuhin Das
    2019-01-21 18:46

    Jshdhdhdhxj

  • আবির ইয়াসার
    2018-12-26 22:35

    দারুণ উপভোগ্য

  • Khondoker Salehin
    2018-12-23 21:46

    4.5/5

  • Sourav Kundu
    2019-01-12 19:50

    good

  • Souvik Das
    2019-01-02 00:42

    osadharon.... na porle jibon britha !!

  • Sudeshna
    2018-12-25 20:35

    Awesome science fiction book. And the best thing is it will be enjoyed across all age groups.

  • Olive
    2019-01-13 23:36

    সেই বাচ্চাকালে পড়া হয়েছিলো! এখনো favourite! :)

  • Ashik Innerpeace
    2019-01-18 20:26

    Satyajit ray, one of the most talented people in the history of bengali literature and movie being a writer, movie director, music producer and artist. He has signature difference from others of his time in his every piece o work. Shanku is one of them.Shanku is a collection o science fiction short stories about a professor scientist shanku. Nobody ever tried science fiction before him at this scale before. So, we have to admit it was an audacious job. If we compare on the logic of science the stories may be weakened, but if we concentrate on story line its amazing. In portraying shanku's inventions MR. Ray was really creative, for example "botika india". He didnt come up with any scientific complexity rather kept it to the rudimentary level. Yes, some may question his scientific ability regarding this, but it made the story more attractive and acceptable to readers of both scientific and non-scientific base. Another thing amazed me, the fusion of science and ghost and spirits, that tastes different. Also the plot of the stories take us to different countries, from egypt to Germany, South America to south africa. This may attract young adults.Some of the stories have same plots and you can guess the end, which may bore some readers. Serious science fiction lovers may also find some stories totally illogical.The illustrations on the book is also made by satyajit ray himself. Overall its an another brilliant work of satyajit ray, which will sooth the readers very much.

  • শবর (Shabor)
    2019-01-08 18:34

    সত্যজিৎকে আমি গুরু মানি, গুরুর বই নিয়ে কিছু লেখার সাহস-টাহস হয়নাই। এই গল্পগুলা একটা প্রজন্মের শৈশব-কৈশোর বিল্ড করসে, কল্পনা করতে শিখাইসে, নীতিবোধ শিখাইসে, বড় স্বপ্ন দেখতে শিখাইসে। সেই বই পড়লাম এই বুড়ো বয়সে। আগে যদি কেউ বলতো যে শঙ্কু সায়েন্স ফিকশন না, সায়েন্স ফ্যান্টাসি! সায়েন্স ফিকশনের প্রতি অদ্ভুত বিতৃষ্ণার ফলে এতদিন দেরি হলো। তারেক মাসুদের যেমন সিনেমা দেরিতে, আমারও না হয় শঙ্কু দেরিতে হলো। নেভারের চেয়ে দেরি ভাল।

  • ফরহাদ নিলয়
    2019-01-03 23:40

    শঙ্কু, প্রোফেসর শঙ্কু। পৃথিবীর সর্বশ্রেষ্ঠ বিজ্ঞানী। বিশ্বব্যাপী পরিচিত তার নানা আবিষ্কারের কারণে। তিনি খুব অ্যাডভেঞ্চার প্রিয়ও। জীবনে অসংখ্য অভিজান সম্পন্ন করেছেন। অ্যামাজানের গহীন জঙ্গল থেকে শুরু করে চাঁদের দেশ পর্যন্ত এমন কোন জায়গা নেই যেখানে প্রোফেসরের পায়ের ধুলো পড়েনি।অন্যদের কি মনে হয় জানি না, তবে আমার মনে হয় শঙ্কু সত্যজিৎ রয়ের সেরা কৃর্তী, সেরা সৃষ্টি। শঙ্কুর তুলনা শুধু শঙ্কুই। পৃথিবীর আর কোন কিছুর সাথেই শঙ্কুর তুলনা চলে না। যারা এখনো শঙ্কু পড়েন নি, তারা আন্দাজও করতে পারবেন না কি অসাধারণ জিনিস আপনারা মিস করে গেছেন।শঙ্কু সম্পর্কে আমি প্রথম শুনি আমার প্রেমিকার কাছে। সে ই প্রথম বইটার উচ্ছ্বাসিত প্রশংসা করেছিল আমার কাছে। এমনকি বইটাও সে ই আমাকে গিফট করে। এজন্য আমি এখনো তাকে ধন্যবাদ জানাই, এই অসাধারণ ক্যারেক্টারটির সাথে আমার পরিচয় করিয়ে দেয়ার জন্য।শঙ্কু, আমার জীবনে পড়া সেরা বই। :)

  • Redwan Orittro
    2019-01-18 19:38

    Probably the first science fiction I read. First read it 13years back and I still read it now - Yes this is the kind of book that you can go back again and again and rediscover the plot, the characters, the places Professor Shonku visits and his discoveries. I really hope they make a film from this series.

  • Soumik
    2019-01-18 20:50

    Awesome creation....fascinating creation and imaginative power....really hats of to satyajit ray for his immense contribution to the world of art and culture....Really can't imagine how a person can be such diversified be it be writing story books, creating, directing movies, drawings for his books and movies.

  • Arafat Hossain
    2019-01-20 21:39

    "সত্যজিৎ রায়ের গল্প"-শুনলেই মনের ভেতর একটা থ্রিল অনুভব হয়।ফেলুদা, তাড়িনীখুড়ো বা শঙ্কু কিনবা ছোট গল্পগুলো সত্যজিৎ রায় এমনভাবে লিখেছেন যা সব বয়সী পাঠক দের মনে রোমাঞ্চ সৃষ্টি করে।ড. ত্রিলোকেশ্বর শঙ্কুর ডায়রির মত ক্লাসিক আমার মতে বাংলা সাহিত্যে কমই আছে। চাদেঁর পাহাড়ে"-এর "সংকর" বা "আলভারেজ" এর পর এমন জাঁদরেল অ্যাডভেন্ঞ্চার শুধু শঙ্কুর ডায়রিতেই পেয়েছি।

  • Denim Datta
    2019-01-15 19:49

    Satyajit Ray is no doubt a brilliant story writer, And all his stories Feluda, Sonku, and short stories are a brilliant piece of work.It is pointless to give review on his works, as all bengali readers are familiar with Satyajit Ray's work.

  • Kaustav
    2019-01-18 17:48

    I just took 6 days to complete the whole book...its such a unputdownable!!!!!

  • Deepayan Bhattacharjee
    2019-01-08 01:39

    Filled most of my childhood days (and nights) with immense happiness.

  • Sayantan
    2019-01-08 17:46

    very good